চলতি মাসে জগন্নাথপুর ও ওসমানী নগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল

সারাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক:: চলতি মাসে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা ও সিলেটের ওসমানী নগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হবে। সংশ্লিষ্ট সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সোমবার (১৬ মে) বিকেলে সিলেটের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ফয়সল কাদের এমন ধারণা দিয়ে বলেন, ‘বর্তমানে আমাদের গোলাপগঞ্জ উপজেলা ও বিয়ানীবাজার পৌরসভা সহ বেশ কয়েকটি পরিষদে নির্বাচন চলছে। মেয়াদোত্তীর্ন হওয়ায় সিলেটের ওসমানী নগর ও জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের তফসিল এ মাসে ঘোষণা হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে কবে ঘোষণা হবে সে ব্যাপারে সুস্পষ্ট কোনো তথ্য নিশ্চিত করতে পারেন নি তিনি।’

জানা যায়, ২০১৭ সালের ৬ মার্চ প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুর ও ওসমানী নগর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হন আতাউর রহমান (জগন্নাথপুর) ও ময়নুল হক চৌধুরী (ওসমানী নগর)। তাঁরা দু’জনই বিএনপির দলীয় প্রতীক ধানের শীষ মার্কা নিয়ে জয়লাভ করেন।

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় বিএনপি প্রার্থী আতাউর রহমান ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে ২৯ হাজার ৯১৪ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের আকমল হোসেন পেয়েছিলেন ২৫ হাজার ১৯৮ ভোট। যিনি তৎকালীন উপজেলা চেয়ারম্যানের দায়িত্বে ছিলেন। আর তৎক্ষালীন ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীকে  পেয়েছিলেন ১৩ হাজার ৬১৫ ভোট।

এ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের বিজন কুমার দেব ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিএনপির মোছা. ফারজানা আক্তার নির্বাচিত হয়েছিলেন।

এদিকে, সিলেটের ওসমানীনগর উপজেলা পরিষদের প্রথম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন বিএনপির ময়নুল হক চৌধুরী। তিনি ধানের শীষ প্রতীকে পেয়েছিলেন ১৯ হাজার ৮৩৮ ভোট। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঘোড়া প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আখতারুজ্জামান চৌধুরী জগলু পেয়েছিলেন ১৭ হাজার ৮৬৫ ভোট। নৌকা প্রতীক নিয়ে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আতাউর রহমান পেয়েছিলেন ৯ হাজার ৮০৯ ভোট। লাঙল প্রতীক নিয়ে মো. শিব্বির আহমদ পেয়েছিলেন দুই হাজার ৪২৪ ভোট।

২০১৫ সালের ১৩ জুলাই যাত্রা করা এ উপজেলার প্রথম ভাইস চেয়ারম্যান বিএনপির মো. গয়াস মিয়া ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বিএনপির মুসলিমা আক্তার চৌধুরী।

সংবাদটি শেয়ার করুন