জামালগঞ্জে ভাবি হত্যায় ঘাতক দেবর কানাইঘাট থেকে আটক

সারাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক:: সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জে দেবরের দায়ের কোপে ভাবি হত্যার প্রধান আসামি একরামুল হোসেনকে সিলেটের কানাইঘাট থেকে আটক করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)-৯। রোববার (১৫ মে) সকালে কানাইঘাটের খুলুর মাটি গ্রাম থেকে তাকে আটক করা হয়। খুলুর মাটি গ্রামের জয়নাল মিয়ার বাড়িতে তিনি আত্মগোপন করে ছিলেন বলে জানা গেছে। একরামুল জামালগঞ্জ উপজেলার ভীমখালি ইউনিয়নের চান্দেরগাঁও গ্রামের মৃত আব্দুল মতিনের ছেলে।

র‍্যাব-৯ সূত্র জানায়, ঘটনার পর থেকে একরামুল তার বন্ধুর বাড়িতে সত্য গোপন করে আত্মগোপনে ছিলেন। গোপন সংবাদে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়। তাকে জামালগঞ্জ থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বাড়ির পাশের কিছু জমি নিয়ে ছোট ভাই একরামুল হকের সঙ্গে আকমল হোসেনের পূর্ব বিরোধ ছিল। সোমবার সকালে ওই জমিতে তৈরি করা খলায় ধান শুকাচ্ছিলেন তারা আকমল হোসেন ও তার স্ত্রী সুলেখা বেগম। এ সময় একরামুল হক সেখানে গিয়ে জমিজমার বিষয়ে কথা বলার এক পর্যায়ে উত্তেজিত হয়ে তাকে গালিগালাজ করতে থাকেন। এ সময় একরামুল হক তাকে মারতে এলে স্ত্রী সুলেখা বেগম গিয়ে বাধা দেন। তখন সুলেখা বেগমের বড় ছেলে মধ্যপ্রাচ্য প্রবাসী সাইদুল হক এগিয়ে গেলে একরামুল তাকে দা দিয়ে কোপ মারেন। তখন সাইদুল হককে সরিয়ে দেওয়ায় কোপটি তার গায়ে না লেগে সুলেখা বেগমের মাথায় লাগে। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। তাকে সুনামগঞ্জ জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকেরা সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। ওসমানী হাসপাতালে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার সকালে তিনি মারা যান।

পরে এ ঘটনায় ১৪ মে সুলেখা বেগমের ছেলে বাদী হয়ে একরামুলকে আসামি করে জামালগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা করেন। মামলা দায়েরের একদিনের মাথায় আসামিকে ধরলো র‍্যাব-৯।

সংবাদটি শেয়ার করুন