সিলেটে দুই বাসা থেকে সাড়ে ৪ হাজার লিটার সয়াবিন জব্দ

সারাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক:: সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সিলেটে অসাধু ব্যবসায়ীরা ক্রেতাদের সঙ্গে প্রতারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। আগের দামের কেনা সয়াবিন তেল বিভিন্ন স্থানে মজুদ করে নতুন দামে বিক্রি করছেন তারা। এমন তথ্যের ভিত্তিতে অসাধু ব্যবসায়ীদের এ অপতৎপরতা ঠেকাতে কাজ করছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

এরই ধরাবাহিকতায় বুধবার (১১ মে) দুপুর ২টার দিকে নগরের কাজিটুলার হিলভিউ কনভেনশন হলের ঠিক পাশের ‘রাবেয়া খাতুন মা মনি’ নামক বাসা এবং স্থানীয় কাউন্সিলর কার্যালয়ের পাশের একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে সাড়ে ৪ হাজার লিটার মজুদকৃত সয়াবিন তেল জব্দ করে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। অভিযানে সহযোগিতা করেন র‍্যাব-৯ এর সদস্যরা।

খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর, সিলেট কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক শ্যামল পুরকায়স্থ বলেন, গুদামে বিপুল পরিমাণ সয়াবিন তেল মজুদ করে রাখার খবর পেয়ে আমরা অভিযান চালিয়ে সাড়ে ৪ হাজার লিটার তেল জব্দ করি। জব্দকৃত তেল পূর্বের দামে বিক্রি করা হবে।

শ্যামল পুরকায়স্থ বলেন, আমরা খবর পেয়েছি- কিছু অসাধু ব্যবসায়ী আগের দামে কেনা সয়াবিন তেল নতুন বাড়তি দামে বিক্রি করে ক্রেতাদের সঙ্গে প্রতারণা করছেন। এমন খবরে আমরা নগরজুড়ে অভিযান চালাচ্ছি। এখন লালদিঘীর পাড় এলাকায় অভিযানে যাচ্ছি।

ঈদের পর থেকেই বেড়েছে সয়াবিন তেলের দাম। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে সিলেটে সঙ্কট দেখা দিয়েছে তেলের। ব্যবসায়ীরা তেল মজুদ করে রাখার অভিযোগ রয়েছে। অনেকে বিক্রি করছেন বেশি দামে।

এরআগে মঙ্গলবার দিনভর নগরের কালিঘাট এলাকায় অভিযান চালায় জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। অভিযানে কালিঘাটে মাহের ব্রাদার্স নামক দোকানের গুদামে মজুদ করে রাখা ৫ টন সয়াবিন তেল জব্দ করে  বিভিন্ন দোকানি ও সাধারণ মানুষের কাছে আগের দামে বিক্রি করা হয়। তবে কালিঘাটে অভিযান চালানোর সময় ‘কামাল বাদ্রার্স’ নামক দোকানটি তালাবদ্ধ দেখে সন্দেহ জাগে ভোক্তা অধিদপ্তর। পরে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে মজুদের বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে কাজিটুলার এ দুটি বাসায় অভিযান চালানো হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন