জগন্নাথপুরের অধিকাংশ দোকানে নেই মূল্য তালিকা, প্রতারিত হচ্ছেন ক্রেতারা

সারাদেশ

রিয়াজ রহমান, জগন্নাথপুর থেকে:: সারা দেশের ন্যায় সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার সকল হাট বাজারে অস্থির হয়ে উঠছে নিত্যপণ্যের বাজার। প্রতিদিন কোননা কোন পণ্যের দামে আসছে পরিবর্তন। তবে, দাম কমার ক্ষেত্রে এই পরিবর্তন করেন ব্যবসায়ীরা। দাম বাড়ার সাথে সাথে দোকানে থাকা পুরাতন পণ্যও বেশী দামে বিক্রয় করছেন ব্যবসায়ীরা, কিন্তু দাম কমলে একই পণ্য কম দামে বিক্রয় করছেনা তারা।

দাম বৃদ্ধির সংবাদ পাওয়ার সাথে সাথে যেসব পণ্যের গায়ে মূল্য লেখা রয়েছে তাও বেশী দামে বিক্রয় করছেন। আবার একই পণ্য দাম কমলে পন্যের গায়ের দামের চেয়ে কম দামে বিক্রয় করেন না ব্যবসায়ীরা। এতে করে ক্ষতির সম্মুখিন হচ্ছেন সাধারণ ক্রেতারা আর অসাধু কিছু ব্যবসায়ীরা হচ্ছেন লাভবান।

জগন্নাথপুরের অধিকাংশ দোকানে মূল্য তালিকা না থাকার কারনে বিক্রেতারা যে যার ইচ্ছে মতো বিক্রি করছেন পণ্য জগন্নাথপুর সদর বাজারের এই চিত্র। উপজেলার অন্যান্য বাজার এবং এলাকার চিত্র আরো খারাপ। সদর বাজারের চেয়ে বেশি মূল্যে সেখানে বিক্রি হচ্ছে ভোগ্য পণ্য।

সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, মুদি দোকানগুলোতে মূল্য তালিকা টাঙ্গানো বাধ্যতামূলক। কিন্তু অধিকাংশ দোকানেই টাঙ্গানো হয় না পণ্যের মূল্য তালিকা। মাঝে মাঝে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে কয়েকটি দোকানকে জরিমানা করলে কিছুদিন পরিস্থিতি ভালো থাকে। এরপরই আবার সেই পুরনো অবস্থা বিরাজ করে। বাজারের অধিকাংশ দোকানেই রয়েছে মূল্য তালিকার বোর্ড। কিন্তু ব্যবসায়ীরা এই বোর্ডে পণ্যের মূল্য নির্ধারণ করেন না এবং বোর্ড সামনে রাখেন না। মাঝে মাঝে বিভিন্ন সরকারি অভিযানে লোক দেখানো তালিকা টাঙ্গিয়ে দেন।

গতকাল ৭ মে সন্ধ্যায় বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, বাজারের কয়েকটি ভোগ্যপণ্যের দোকান ছাড়া অধিকাংশ দোকানের সামনেই নেই মূল্য তালিকা। আবার মূল্য তালিকার বোর্ড  থাকলেও সেখানে লেখা নেই পণ্যের দাম। কয়েকটি দোকানে তালিকা টাঙ্গানো হলেও তাতে রয়েছে মুল্যের হেরফের। মূল্য হেরফেরের পাশাপাশি খুবই কম সংখ্যক পণ্যের মূল্য লিপিবদ্ধ রাখা হয়েছে এসব তালিকায়।

বর্তমানে সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধির সংবাদের সাথে সাথে বেশী দামে অর্থ্যাৎ সয়াবিনের বোতলে লেখা দামের চেয়ে ২০/২৫ টাকা বেশী দামে বিক্রয় করছে প্রতি লিটার সয়াবিন।

জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ সুনামগঞ্জ এর সহকারী পরিচালক মো. সফিকুল ইসলাম জানান, ভোক্তাদের অধিকার রক্ষায় আমরা সবসময় কাজ করে যাচ্ছি। প্রত্যেক দোকানে পণ্যের মূল্য তালিকা টাঙ্গানো নিশ্চিত করতে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ক্রেতারা  জগন্নাথপুর উপজেলার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে মূল্য তালিকা টাঙ্গানোর ব্যবস্থা ও বাজার তদারকি করতে সংশ্লিট কর্তৃপক্ষের সুদিৃষ্টি কামনা করছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন