সুনামগঞ্জে মধ্যরাতে কালবৈশাখীর তাণ্ডব, আতঙ্কিত হয়ে ২ জনের মৃত্যু

সারাদেশ

খবরটুডে ডেস্ক:: দুর্যোগ পিছু ছাড়ছে না হাওর অঞ্চল সুনামগঞ্জের। একদিকে পাহাড়ি ঢলে একের পর এক বোরো ফসলের ক্ষয়ক্ষতি, অন্যদিকে কালবৈশাখী ঝড়ের তান্ডবে লাকাল সাধারণ মানুষ।

মঙ্গলবার মধ্য রাতে জেলার সদর উপজেলা, শান্তিগঞ্জ, দিরাই, জামালগঞ্জ, দোয়ারাবাজার, তাহিরপুর, জগন্নাথপুর উপজেলার বেশ কয়েকটি স্থানে কালবৈশাখী ঝড়ে ব্যাপক কাচা- আধাপাকা টিনসেটের ঘরবাড়ি, দোকানপাট, গাছপালা বিদ্ধস্ত ও বিদ্যুতের লাইনের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

ঝড়ে আতঙ্কিত হয়ে দিরাই উপজেলার ভাটিপাড়া ইউনিয়নের আব্দুল ওয়াহাব (৬০) নামে এক বৃদ্ধ ও জামালগঞ্জ উপজেলার ভীমখালী ইউনিয়ন সন্তোষপুর গ্রামের হুশিয়ার আলীর স্ত্রী আজিজুন্নেছা মারা যাওয়ার খবর নিশ্চিত করেছেন স্থানীয়রা।

জানা যায়, মঙ্গলবার মধ্যরাতে প্রবল বেগে জেলার সদর উপজেলা, শান্তিগঞ্জ, দিরাই, জামালগঞ্জ, দোয়ারাবাজার, তাহিরপুর, জগন্নাথপুর উপজেলার বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের উপর দিয়ে কালবৈশাখী ঝড় বয়ে যায়। এসব উপজেলায় সহ্রাধিক ঘরবাড়ি ও গাছপালা বিধ্বস্ত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পল্লী বিদ্যুতের লাইন। মধ্যরাত থেকে রিপোর্ট লেখার আগ পর্যন্ত এসব এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

বুধবার সকালে শান্তিগঞ্জ উপজেলার পূর্ব পাগলা ও পশ্চিম পাগলা ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম ঘুরে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি ও গাছপালার লন্ডভন্ড চিত্র দেখা যায়।

ইনাতনগর গ্রামের দিনমুজর আছিয়া বেগম জানান, “আমি অসহায় মানুষ। গত রাতে আমার শেষ সম্ভল আশ্রয়ের ঘরটুকু তুফানে ফালাই দিছে। রাতে ঘরের নিচে ছিলাম। তুফান এসে হঠাৎ ঘর উড়িয়ে নিয়ে যায়। ছোট ছোট ছেলে মেয়ে নিয়ে কোথায় যাবো।”

ইকবাল নামে আরেক জন বলেন, “ঝড়ে আমার ভাইয়ের ঘর ও আমার ব্যবসার ফার্মেসির দোকান উড়িয়ে নিয়ে গেছে। আমার অনেক টাকার ক্ষতি হয়েছে। আমাদের এলাকার ২৫-৩০টি ঘর লন্ডভন্ড হয়ে গেছে।”

পূর্ব পাগলা ইউনিয়নের চিকারকান্দি গ্রামের বাসিন্দা হেলা আহমদ বলেন, ‘আমার দুইটি দোকান ঘর তুফানে উড়িয়ে নিয়ে গেছে। একদিকে হাওর ডুবি অন্যদিকে ঝড়তোফান মানুষের কষ্টের শেষ নেই।’

ঝড়ে আতঙ্কিত হয়ে দিরাই উপজেলার ভাটিপাড়া উর্দ্ধনপুর গ্রামে এক বৃদ্ধ মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করেছেন দিরাই থানাও ওসি সাইফুল আলম। জামালগঞ্জ উপজেলার ভীমখালী ইউনিয়নের সন্তোষপুর গ্রামের বৃদ্ধা মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন স্থানীয় সমাজকর্মী শামছুল আলম।

কালবৈশাখী ঝড়ে ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে জেলা ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক কর্মর্কতা শফিকুল ইসলাম বলেন, গত রাতে সুনামগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলায় কালবৈশাখী ঝড়ে ঘর-বাড়ি ও গাছপালার ক্ষতি হয়েছে।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা সংগ্রহ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন