পেলের যে সাত রেকর্ড এখনো অক্ষত

খেলাধুলা

ক্রীড়া ডেস্ক:: সর্বকালের সেরা ফুটবলারের নাম বললে সবার আগে আসবে পেলের নাম। ফুটবলের ‘রাজা’ নামে পরিচিত তিনি। ফুটবল পায়ে তার প্রজন্মকে মুগ্ধ করে রেখেছিলেন ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি।

জিতেছেন বিশ্বকাপ। করেছেন অসংখ্য রেকর্ড। তার মধ্যে সময়ের আবর্তনে বেশ কয়েকটি ভাঙলেও এখনো সাতটি রেকর্ড অক্ষত আছে। তার সেই সাত রেকর্ড নিয়ে এই আয়োজন।

১. সবচেয়ে কম বয়সী ফুটবলার হিসেবে বিশ্বকাপ জিতেছেন পেলে। ‍সুইডেনে ১৯৫৮ সালে ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জয়ের শিরোপা হাতে নেওয়ার সময় তার বয়স ছিল ১৭ বছর ও ২৪৯ দিন।

২. ব্রাজিলের জার্সিতে সর্বোচ্চ গোলের মালিক পেলে। ফিফা স্বীকৃত ৯২টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলে ৭৭ গোল করেছেন এই কিংবদন্তি ফুটবলার। পাঁচ দশক ধরে অক্ষত আছে এই রেকর্ড। তবে ১১৭ ম্যাচে ৭১ গোল নিয়ে এই রেকর্ড ভাঙার সামনে দাঁড়িয়ে আছেন নেইমার।

৩. ফিফা বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি মেডেল গলায় পরা খেলোয়াড় পেলে। ১৯৫৮, ১৯৬২ ও ১৯৭০— তিনবার বিশ্বকাপের ফাইনালে খেলেছেন তিনি। তারচেয়ে বেশি আর কোনো খেলোয়াড় বিশ্বকাপ জিততে পারেননি।

৪. বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি অ্যাসিস্টের রেকর্ডটিও পেলের। ১৯৫৮, ১৯৬২ ও ১৯৬৬ ও ১৯৭০— মোট চারটি বিশ্বকাপ খেলে ১০টি অ্যাসিস্ট করেছেন এই ব্রাজিলিয়ান কিংবদন্তি। ১৯৭০ বিশ্বকাপে সেলেসাওদের শিরোপা জেতানোর পথে রেকর্ড ছয়টি অ্যাসিস্ট করেন পেলে। তার মধ্যে ফাইনালে অ্যাসিস্ট করে দুটি। বিশ্বকাপের একক সংস্করণে এত বেশি অ্যাসিস্ট করতে পারেননি কোনো ফুটবলার।

৫. বিশ্বকাপ ইতিহাসের সবচেয়ে কমবয়সী গোলদাতার রেকর্ডটিও পেলের। ১৯৫৮ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ওয়েলসের বিপক্ষে গোলটি করেন তিনি। তার গোলে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে ব্রাজিল।

৬. বিশ্বকাপের সর্বকনিষ্ঠ হ্যাটট্রিকের রেকর্ডটিও ৮০ বছর বয়সী এই কিংবদন্তির। ১৯৫৮ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে পেলের হ্যাটট্রিক জাদুতে ফ্রান্সকে ৫-২ গোলে হারায় ব্রাজিল। সেই সঙ্গে আন্তর্জাতিক ফুটবলে সবচেয়ে কমবয়সী হিসেবে হ্যাটট্রিকের রেকর্ড গড়েন তিনি। তখন পেলের বয়স ১৭ বছর ২৪৫ দিন।

৭.  এক পঞ্জিকাবর্ষে সবচেয়ে বেশি গোলও পেলের। ১৯৫৯ সালে সান্তোসের হয়ে ১২৭ গোল করেন তিনি। এই রেকর্ডের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে আছেন লিওনেল মেসি। ২০১২ সালে ৯১ গোল করেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড।

তবে এক এত কীর্তি সত্ত্বেও কখনো ব্যালন ডি’অর জিতেননি পেলে। ১৯৯৫ সালের আগ পর্যন্ত এই পুরস্কার দেওয়া হতো কেবল ইউরোপিয়ান ফুটবলারদের। তবে ওই বছর থেকে বিশ্বের সব খেলোয়াড়ের জন্য এই পুরস্কার প্রযোজ্য হয়। ১৯৯৫ সালে প্রথম নন-ইউরোপিয়ান হিসেবে ব্যালন ডি’অর জেতেন লাইবেরিয়ার জর্জ উইয়াহ।

সংবাদটি শেয়ার করুন