শাহবাজের অধীনে মন্ত্রীত্ব নয়, সাংবিধানিক পদ চায় পিপিপি

আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ এখনো তার মন্ত্রীদের নাম ঘোষণা করেননি। জোটের মধ্যে যাতে কোনো ভুল বোঝাবুঝি না হয়, সেজন্য ধীরে চলো নীতি নিয়েছেন তিনি। জোটসঙ্গী সব দলের সঙ্গেই আলোচনা করে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন শাহবাজ।

বর্তমান ক্ষমতাসীন জোটের দ্বিতীয় বৃহত্তম দল হলো বিলাওয়াল ভুট্টোর দল পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি)। স্বাভাবিকভাবে মন্ত্রিসভায় তাদের বড় অংশগ্রহণ থাকার কথা। শুরুর দিকে বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে সংবাদমাধ্যমগুলো জানাচ্ছিল যে, পিপিপির আটজন নেতা নতুন মন্ত্রিসভায় স্থান পেতে পারেন।

কিন্তু এখন শোনা যাচ্ছে, প্রধানমন্ত্রী শাহবাজের অধীনে মন্ত্রিসভায় পদ পাওয়ার চেয়ে কিছু সাংবিধানিক পদ পেতে বেশি আগ্রহী পিপিপি। এর মধ্যে অন্যতম হলো জাতীয় পরিষদের স্পিকারের পদ ও সিনেটের চেয়ারম্যানের পদ। এমনকি প্রেসিডেন্ট পদও পেতে চায় বিলাওয়ালের দল।

তবে এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শাহবাজের অবস্থান হলো মন্ত্রিসভায় পিপিপির প্রতিনিধিত্ব থাকতে হবে। সেটা না হলে জনগণের কাছে জোট সম্পর্কে ভুল বার্তা যেতে পারে। যদিও প্রেসিডেন্ট বা স্পিকারের পদ নিয়ে সুনির্দিষ্ট কিছু বলেননি তিনি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, প্রধানমন্ত্রী শাহবাজকে জোটের সবাইকে নিয়ে ঐকমত্যের ভিত্তিতেই চূড়ান্ত করতে হবে মন্ত্রিসভা। সেটা করতে না পারলে সংকটে পড়তে পারেন তিনি। জাতীয় পরিষদে এই জোটের ১৭৪টি আসন রয়েছে, যা সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় আসনের চেয়ে মাত্র দুটি বেশি। এ কারণেই জোটের সবার মন জুগিয়ে চলতে হবে প্রধানমন্ত্রী শাহবাজকে।

সংবাদটি শেয়ার করুন