বোরকা পরায় ছাত্রীকে ‘পর্ন তারকা’র সঙ্গে তুলনা করলেন শিক্ষক

শিক্ষা

মো. মুন্না মিয়া:: শিক্ষক শ্রেণিকক্ষে প্রবেশের পর দাঁড়িয়ে সম্মান না করায় বোরকা পরিহিত দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে পর্ন তারকা মিয়া খলিফার সঙ্গে তুলনা করে ভর্ৎসনা করেছেন এক শিক্ষক। শুধু এতেই ক্ষ্যান্ত হননি তিনি। ওই ছাত্রীকে পুরো এক ঘণ্টা দাঁড়িয়ে ক্লাস করতেও বাধ্য করেন তিনি। স্থানীয় মোড়ল ও প্রধান শিক্ষক বিষয়টি ধামাচাপা দিতে তড়িঘড়ি করে আপোষ মিমাংসা করে দেন।

গত শনিবার সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার ব্রজেন্দ্রগঞ্জ আরসি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ইংরেজি ক্লাসে এ ঘটনা ঘটে। অপমানিত ওই ছাত্রী প্রধান শিক্ষককে ঘটনা জানালেও কার্যকর কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় সাধারণ ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকরা বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত ইংরেজি শিক্ষক সেবক রঞ্জন দাসের শাস্তি দাবি করে রবিবার সকালে বিদ্যালয়ে বিক্ষোভ মিছিল করে সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা। পরে দুপুরে তড়িঘড়ি করে বিদ্যালয়ের শিক্ষক হলরুমে ম্যানেজিং কমিটি, শিক্ষক, অভিভাবক ও স্থানীয়দের উপস্থিতিতে সালিশি বৈঠক হয়। বৈঠকে নিজের ভুল স্বীকার করে শিক্ষক সেবক রঞ্জন দাস ক্ষমা প্রার্থনা করেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দশম শ্রেণির একাধিক শিক্ষার্থী বলেন, শনিবার ইংরেজি ক্লাস নিতে সেবক স্যার ক্লাসে প্রবেশ করলে আমরা অনেকেই দাঁড়িয়ে সম্মান জানাই। পেছন দিকে বেশ কয়েকজন দাঁড়ায়নি। এরমধ্যে (ভুক্তভোগী) মেয়েটিও ছিল। স্যার পেছনে গিয়ে অশ্রাব্য ভাষায় বোরকা পরিহিত ওই ছাত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলতে থাকেন, ‘এখানে বোরকা পরে, হাতে পায়ে মোজা লাগিয়ে মিয়া খলিফার মতো বসে আছো! স্যারকে সম্মান করতে জানো না। এরপর তাকে দাঁড়িয়ে পুরো ক্লাস করতে নির্দেশ দেন স্যার।’

ভুক্তভোগী মেয়ের মা জানান, তারা নিরীহ। যা হয়েছিল সেটা দশজন মিলে সমঝোতা করে দেয়া হয়েছে। এতে খুশি আছেন তারা।

সালিশি আব্দুল হেকিম মোড়ল বলেন, শিক্ষক নিজের ভুল বুঝতে পেরে ক্ষমা চাওয়ায় বিষয়টি মীমাংসা করে দেয়া হয়েছে।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আশরাফ উদ্দিন বলেন, ছাত্রীকে অনেকক্ষণ দাঁড় করিয়ে রাখা হয়েছিল। গার্ডিয়ানের সম্মতি নিয়ে বিষয়টি মীমাংসা করে দেয়া হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন