জগন্নাথপুরের ৭ ইউপিতে নৌকার মনোনয়ন চান ৪০ নেতাকর্মী

রাজনীতি

বিশেষ প্রতিনিধি:: আগামী ২৩ ডিসেম্বর সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার ৭ ইউনিয়ন পরিষদে স্থানীয় সরকারের নির্বাচন। দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিতব্য এ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী ৪০ জন। নৌকায় চড়ে চেয়ারম্যান হওয়ার জন্য ব্যাকুল তারা।

তফসিল অনুযায়ী, আগামী ২৫ নভেম্বর প্রার্থীদের মনোনয়পত্র দাখিলের শেষ দিন। মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই হবে ২৯ নভেম্বর। এরপর ৩০ নভেম্বর থেকে ২ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাছাইয়ে বৈধ প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে পারবেন। ভোট ২৩ ডিসেম্বর। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

তথ্যানুযায়ী ১নং কলকলিয়া ইউনিয়নে দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ৮ জন। তাঁরা হলেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক কুতুব উদ্দিন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ফখরুল হোসেন, সহ সভাপতি মিজানুর রহমান, যুগ্ম সম্পাদক আলাল হোসেন রানা, সুহিনুর রহমান দুদু, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিব, আওয়ামী লীগ নেতা নুরুল হক ও আলতাবুর রহমান।

উপজেলার ২নং পাটলী ইউনিয়নের নৌকা প্রতীক চেয়েছেন ৬ জন। তারা হলেন সাবেক চেয়ারম্যান ও গেল নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আঙ্গুর মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বর্তমান চেয়ারম্যান (বিদ্রোহী) সিরাজুল হক, যুক্তরাজ্য প্রবাসী শাহ আবুল কাহার রাসেল, যুক্তরাজ্য প্রবাসী রিয়াজুল আলম আনসার, যুক্তরাজ্য প্রবাসী আব্দুল হাই আজাদ, যুবলীগ উপজেলা যুবলীগের সহসভাপতি এম ফজরুল ইসলাম।

উপজেলার ৫নং চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করতে চেয়েছেন ৪ প্রার্থী। তাঁরা হলেন গেল নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে বিজয়ী বর্তমান চেয়ারম্যান আরশ মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বকুল, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আব্দুল গফুর ও যুক্তরাজ্য প্রবাসী আব্দুল মোমিন।

শহীদের রক্তে বিজড়িত উপজেলার ৬নং রাণীগঞ্জ ইউনিয়নে ক্ষমতাসীনদের মনোনয়ন চেয়েছেন ৮ জন। তাঁরা হলেন গেল নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের নির্বাচিত ও বর্তমান চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম রানা, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছদরুল ইসলাম, রানীগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুস সামাদ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা শাহ জামান উল্লাহ মুক্তার, উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি ছালেহ আহমদ, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক মোতাহির আলী, যুক্তরাজ্য প্রবাসী মো. ছালিক মিয়া ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি মঞ্জুরুল ইসলাম।

উপজেলার ৭নং সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়নে দলীয় প্রার্থী নির্বাচনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধভাবে দলীয় প্রার্থী চূড়ান্তকরণ সভা করতে পারেনি। বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে এ ইউনিয়নে নৌকা চেয়েছেন ৫ জন। তারা হলেন – গেল নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে সামান্য ভোটে পরাজিত ও সাবেক চেয়ারম্যান আবুল হাসান, ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ সালেহ আহমদ ছোট মিয়া, উপজেলা যুবলীগের সাবেক ক্রীড়া সম্পাদক যুক্তরাজ্য প্রবাসী মকসুদ কোরেশি, আওয়ামী লীগ নেতা যুক্তরাজ্য প্রবাসী আজহার কামালী ও তানভীর কামালী।

উপজেলার ৮নং আশারকান্দি ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করতে চেয়েছেন ৭ প্রার্থী। তাঁরা হলেন- গেল নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে বিজয়ী বর্তমান চেয়ারম্যান ও রাজাকার পুত্র শাহ আবু ইমানি, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব আব্দুস সত্তার, আওয়ামী লীগ নেতা মশহুদ আহমদ, মোনায়েম খান, যুক্তরাজ্য প্রবাসী আবু বক্কর খান খছরু, প্রবাসী সৈয়দ জমিরুল হক, উপজেলা যুবলীগের সহসভাপতি হামিদুর রহমান চৌধুরী বাচ্চু।

উপজেলার ৯নং পাইলগাঁও ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক চেয়েছেন ২ জন। তাঁরা হলেন- সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ও সাবেক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি হাজী সুন্দর উদ্দিন ও ব্যবসায়ী মাহমুদুল হাসান কোরেশী।

আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় দপ্তর সেল সূত্র জানায়, চতুর্থ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফমর বিক্রি ও জমা গতকাল শুক্রবার (১২ নভেম্বর) থেকে শুরু হয়ে চলবে মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বিকেল সাড়ে ৫টা পর্যন্ত আওয়ামী লীগের বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ আবেদনপত্র সংগ্রহ এবং জমা দেওয়া যাবে বলে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানান আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় যে, মনোনয়ন প্রত্যাশীদের যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং কোনোধরনের লোকসমাগম ছাড়া প্রার্থী নিজে অথবা প্রার্থীর একজন যোগ্য প্রতিনিধির মাধ্যমে আবেদনপত্র সংগ্রহ ও জমা দিতে হবে। আবেদনপত্র সংগ্রহের সময় অবশ্যই প্রার্থীর জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি সঙ্গে আনতে হবে এবং আগামী ১৬ নভেম্বর বিকেল ৫টার মধ্যে মনোনয়ন ফরম জমা দিতে হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন